1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
তানোরে বোরো চাষে খরচ বাড়ছে গোপালগঞ্জ পুইশুরের কৃতিসন্তান মরহুম ছোটন সিকদারের মৃত্যু বার্ষিকী রমজানে পণ্যের অভাব নেই – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাকের পার্টির নেতাকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টা সহ টাকা ছিনতাই অভিযাত্রিকের ২৩২৬ সাপ্তাহিক সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত রাজধানীর ডেমরায় যৌতুক লোভী স্বামীর অত্যাচারে গৃহবধু মৌসুমী এখন দিশেহারা গলাচিপায় অবৈধ জাল অপসারণে বিশেষ কম্বিং অপারেশন শুরু গলাচিপায় আইপিএম পদ্ধতিতে বেগুন উৎপাদন শীর্ষক কৃষক মাঠ দিবস মুন্সীগঞ্জ সদরের রিকাবীবাজার মাছ আড়তে ৩৫ মণ জাটকা জব্দ মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা উপ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে,আজ থেকে প্রচারণা

ঢেঁকি বলে মুহুর্মুহু স্লোগানে ভোটাররা, আবেগে কেঁদে দিচ্ছেন অনেকে

  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৩ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৫১ ০৫ বার পঠিত

জেলা প্রতিনিধি, গাইবান্ধাঃ জাতীয় পার্টি (জাপা) সঙ্গে আসন সমঝোতার কারনে গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনটিতে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী নেই।এই আসটিতে জাপা ও আওয়ামী লীগ এক হয়ে লাঙ্গল প্রতীকের প্রচারণা চালাচ্ছেন। এরপরে ও যেন নির্বাচনে জয়ের পথে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার নাহিদ নিগার শক্তিশালী বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সারাদেশের মতো গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনেও বইছে নির্বাচনের হাওয়া। উপজেলা শহর, বন্দর ও বিভিন্ন গ্রামে ঝুলছে লাঙ্গল, ঢেঁকি, মশাল, ডাব ও গামছাসহ বিভিন্ন প্রতীকের পোস্টার। শীতের সকাল, বিকাল ও রাতে টি-স্টলগুলোতে চলছে চায়ের আড্ডা। কে হবেন আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী তা নিয়ে চলছে কানাঘুষা। এই প্রথম নির্বাচনে অংশ নিয়েই চমক সৃষ্টি করেছেন স্বতন্ত্র এমপি প্রার্থী নাহিদ নিহার সাগর। ভাঙন ধরাতে পারেন লাঙলের দূর্গে।

জানা যায়, এ আসনে নৌকার মনোনয়ন পেয়েছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিল্পপতি মিসেস আফরুজা বারী। পরে জাতীয় পার্টির সাথে সমঝোতা হলে কেন্দ্রীয় নির্দেশে মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন তিনি। কিন্তু মা মনোনয়ন প্রত্যাহার করলেও নির্বাচনে থেকে যান মেয়ে প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ নাহিদ নিগার সাগর। যিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সাবেক সদস্য এবং প্রস্তাবিত কমিটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক। নির্বাচনে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে এবারের নির্বাচনে স্বতন্ত্র হিসেবে অংশ নিতে পারবেন দলীয় যে কেউ। নেওয়া হবে না কোনো সাংগঠনিক ব্যবস্থা। আওয়ামী লীগের এমন গ্রীণ সিগনালে নাহিদ নিগারের এখন পোয়াবারো।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়নের যেখানেই নাহিদ নিগার যাচ্ছেন, সাথে থাকছেন মা আফরুজা বারী এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। এতে বেশ চাঙা হয়ে উঠছেন সমর্থকরা। কাঙ্খিত প্রার্থীকে কাছে পেয়ে ঢেঁকি, ঢেঁকি বলে মুহুর্মুহু স্লোগান তুলছেন ভোটাররা। তারা বলছেন, নৌকা প্রতীক নেই, কিন্তু স্বতন্ত্র হলেও আওয়ামী লীগ করেন এমন প্রার্থী তো রয়েছেন। ‘নৌকার বিকল্প এখন ঢেঁকি’ এমন মন্তব্য করতে দেখা যায় নৌকার সমর্থকদের। প্রার্থীকে জরিয়ে ধরে কাঁদতে ও দেখা গেছে সাধারণ মানুষদের।

এদিকে, ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছিলেন নিগারের মামা প্রয়াত মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন। আর মামার আসনেই নির্বাচনে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের হাতছাড়া হয়ে যাওয়া আসনটি পুনরুদ্ধার করতে চান তিনি। গড়তে চান স্বপ্নের সুন্দরগঞ্জ।

জয়ের ব্যাপরে আশাবাদ ব্যক্ত করে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল্লাহ নাহিদ নিগার বলেন, তিস্তার ভাঙন কবলিত এ উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা চরাঞ্চল। আমি যেহেতু অর্থনীতি নিয়েও পড়াশোনা করেছি এবং আমার মা একজন শিল্পপতি। তাই পরিবার ছেড়ে বাইরে যেতে যাতে না হয়, সেজন্য এলাকার উপযোগী শিল্পকারখানা গড়ে তুলে অবহেলিত এ জনপদের দরিদ্র মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করব। রাস্তাঘাট অধিকাংশ এখনো কাঁচা। উপজেলা সদরের রাস্তাগুলোরও দশা বেহাল। মানুষের মৌলিক অধিকারগুলোর মতো রাস্তাঘাটের উন্নয়নও একই পর্যায়ের। বেকারত্বে ভুগলে তরুণরা বিপথগামী হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই তাদের জন্য সুন্দরগঞ্জে একটি আইটি পার্ক করবো।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ