1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:০৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
দেশ বাসিকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক রিয়াজুল হক সাগর গোপালগঞ্জে ঈদুল ফিতরের নামাজের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে রাজধানীতে বাসা থেকে বাবা ও ছেলের মরদেহ উদ্ধার, নিহত ব্যক্তির মেয়েকে মুমূর্ষ উদ্ধার ফসলি জমিতে পুকুর খনন পাকা রাস্তা নষ্ট করে মাটি বানিজ্যে মুক্তাগাছা সাহিত্য সংসদের আলোচনা দোয়া ও ইফতার নওগাঁর বদলগাছীতে পক্ষপাতিত্ব করে মারধর করে ঘর-বাড়ি ভাঙ্গলেন ফাঁড়ির পুলিশ, সংবাদ সংগ্রহের সময় ফাঁড়ি ইনচার্জের হাতে সাংবাদিক লাঞ্চিত তানোরে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে জমি জবরদখল বগুড়ায় শাপলা সুপার মার্কেটে আগুনে ভস্মীভূত ১৫ দোকান মুক্তাগাছায় কৃষক লীগের উদ্যোগে দো’আ,ইফতার ও আলোচনা অনুষ্ঠিত গোপালগঞ্জে কাশিয়ানীতে ইঁদুর মারার বৈদ্যুতিক ফাঁদে এক কৃষকের মৃত্যু

পঞ্চগড়ে বৃষ্টিতে পানিবন্দী দুই গ্রামের শতাধীক পরিবার

  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৫ জুলাই, ২০২৩
  • ১০০ ০৫ বার পঠিত

মোঃ রেজাউল করিম আলম, জেলা প্রতিনিধি পঞ্চগড় -ঃ- উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে গত ১৫ দিন ধরে অতি বৃষ্টির কারণে পানিবন্দী হয়ে পড়েছে পঞ্চগড় পৌরসভাসহ দুই গ্রামের প্রায় শতাধীক পরিবার। এতে করে জলাবদ্ধতায় মানবেতর জীবন যাপন করছে তারা। অভিযোগ করছেন পূর্বেও প্রশাসনসহ পৌর সভায় বিষয়টি অবগত করা হলেও প্রতিকার পাননি তারা। প্রশাসন বলছে অপরিকল্পিত স্থাপনায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিনে মঙ্গলবার (৪ জুলাই) দিনভর পঞ্চগড় পৌরসভার উত্তর জালাসীর হঠাৎপাড়া এলাকা ও সদর ইউনিয়নের বলেয়াপাড়া এলাকায় ঘুরে দেখা মিলে এমন চিত্র। স্থানীয়দের সাথে কথা বললে তারা জানান, চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন তারা। বসত ঘরসহ রান্না ঘরে জলাবদ্ধতার পানি ঢুকে পড়ায় গত ১৫ দিন ধরে চুলোয় আগুন ধরেনি।

ঘুরে আরো দেখা যায়, পঞ্চগড় পৌরসভার উত্তর জালাসী-হঠাৎপাড়া এলাকায় সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ ও অপরিকল্পিতভাবে বাড়িঘর গড়ে তোলায় হঠাৎপাড়া ও সদর ইউনিয়নের বলেয়াপাড়ায় ১০০টি পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় সামিরুল ইসলাম বলেন, ঘর থেকে বের হওয়া মুসকিল হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে ছোট বাচ্চদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ে গেছি আমরা।

আমেনা বেগম নামে এক নারী বলেন, পানি বন্দীর কারণে আমরা ঈদ করতে পারি নি। দিনের পর দিন রান্না করতে পারছি না। লোকেরা খিচুরীসহ খাবার এনে দিলে আমরা তা খেয়ে দিন যাপন করছি। তবে এই সমস্যা সমাধানের কোন উদ্দোগ দেখছি না।

হঠাৎপাড়া এলাকার বাসিন্দা রৌশন আরা বলেন, ঘরের মধ্যে পানি ঢোকায় রান্নাবান্না করতে পারছি না। ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের নিয়ে রাতে পোকামাকড়ের ভয়ে ঘুমাতে পারি না। পৌরসভার মেয়র-কাউন্সিলর সবাইকে বার বার বলেও কোনো সমাধান হচ্ছে না।

এদিকে পঞ্চগড় পৌরসভার হঠাৎপাড়ায় সীমানাপ্রাচীর স্থাপন করে পানি প্রবাহ বন্ধ করে রাখায় ঘটনাস্থলে গিয়ে নিজেই সীমানাপ্রাচীর ভেঙ্গে দেন পঞ্চগড় পৌর মেয়র। এতে করে পানির চাপ কমে কিছুটা দূর্ভোগ লাঘবের আশা করছেন তিনি।

পঞ্চগড় পৌরসভার পৌর মেয়র জাকিয়া খাতুন বলেন, নিম্নাঞ্চলের চাষাবাদের জমিতে বসত বাড়ি নির্মাণ করায় জলাবদ্ধতা হচ্ছে। একই সাথে অপরিকল্পিত ভাবে এলাকায় বিভিন্ন স্থাপনা করায় সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। আমরা সমস্যা সমাধানে প্রশাসকে সাথে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। জলাবদ্ধতা রুখতে ও দূর্ভোগ কমাতে দ্রুত দুটি বড় ড্রেন নির্মাণ করা হবে।

এদিকে পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদুল হক বলেন, ইতিমধ্যে ওইসব এলাকা পরিদর্শন করে মানুষের খোজখবর নেয়া হচ্ছে। দূর্ভোগ না কমা পর্যন্ত পানিবন্দী মানুষের পাশে থেকে খাবারের ব্যবস্থা করা হবে জানান তিনি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ