1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:০১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
গণমাধ্যম ও মানবাধিকার সংস্থা ন্যাশনাল প্রেস সোসাইটি (এনপিএস) খুলনা বিভাগ লাকসাম আজগরা ইউপি আ’স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী সমাবেশ ও পরিচিত সভা অনুষ্ঠিত গাজীপুরে দুদকের গণশুনানি অনুষ্ঠিত বিরামপুরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ বগুড়ায় দুদিনব্যাপী জামাই মেলা: বড় মাছ কেনার লড়াইয়ে জামাই-শ্বশুর অভিযাত্রিক সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংসদ-এর ২২৭২ তম সাপ্তাহিক সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত প্রশাসনের বন্ধ করা অবৈধ ইটভাটা ফের চালু তানোরে কৃষক দলের আহবায়ক কমিটি গঠন তানোরের দুই মেয়র গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপণে নাগেশ্বরীতে ১৮ টি সংখ্যালঘু পরিবার সরকারের সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত। বাস্তবায়ন হয়নি, মন্দিরের সংস্কার কাজ

তানোর ভবানীপুর মাদরাসা আকুন্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত

  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ১১ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ৪০ ০৫ বার পঠিত

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি -ঃ- রাজশাহীর তানোরের কামারগাঁ ইউনিয়নের (ইউপি) ভবানীপুর দাখিল মাদরাসা আকুন্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব কারণে মাদরাসায় কোনো  উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। গড়ে উঠেনি শিক্ষা গ্রহণের সুষ্ঠু পরিবেশ, প্রয়োজনীয় শিক্ষার্থীও নাই। এটা একটা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রথম দেখায় যে কারো চোখ কপালে উঠবে।
স্থানীয়রা জানান, মাদরাসায় প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র-শিক্ষাপোকরণ নাই, কম্পিউটার শিক্ষক আছে তবে কম্পিউটার ল্যাব শিক্ষার্থী নাই, লাইব্রেরিয়ান আছে লাইব্রেরী নাই, অপরিস্কার ঝুকিপূর্ণ একাডেমিক ভবন, শহীদ মিনার ও সীমানা প্রাচীর নাই। নিয়মিত জাতীয় সঙ্গীত হয় না, শিক্ষক-কর্মচারীরা অফিস সময় মানেন না। এখানে কর্মরত সকল শিক্ষক-কর্মচারী জামায়াত-বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। কম্পিউটার শিক্ষক কম্পিউটার চালাতে পারদর্শী নয়, কম্পিউটারের যাবতীয় কাজ বাইরে থেকে করানো হয়।এতে একদিকে অর্থের অপচয়, অন্যদিকে প্রতিষ্ঠানের সকল তথ্য বাইরের মানুষের হাতে যাওয়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা কম্পিউটার শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এছাড়াও শিক্ষকেরা সৃজনশীল বোঝে না বলে একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেছে। স্থানীয়
অসমর্থীত সুত্র জানায়, নৈতিক শিক্ষার নামে জামায়াত মতাদর্শীদের লেখা বই পড়ানো হয়।
জানা গেছে, বিগত ১৯৮১ সালে কামারগাঁ ইউপির ভবানীপুর গ্রামে এলাকাবাসীর মতামত উপেক্ষা করে রাজনৈতিক নেতার মনোবাসনা পুরুণে রাজনৈতিক বিবেচনায় ভবানীপুর দাখিল মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৯৪ সালে একাডেমিক স্বীকৃতি ও একই বছরে এমপিভুক্ত করা হয়। মাদরাসায় শিক্ষক রয়েছেন ১৭ জন, কর্মচারী ২ জন, তবে প্রয়োজনীয় শিক্ষার্থী নাই। অভিভাবক মহল শিক্ষকদের অফিস সময়, কম্পিউটার শিক্ষা, লাইব্রেরী কার্যক্রম ও প্রয়োজনীয় শিক্ষার্থী ভর্তি নিশ্চিত, সকলের মতামতের ভিত্তিতে পরিচালনা কমিটি গঠন এবং যে বিষয়ে শিক্ষার্থী সংকট সেই বিষয়ের শিক্ষকের এমপিও স্থগিত করাসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিয়মিত পরিদর্শনের দাবিতে সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এবিষয়ে জানতে চাইলে মাদরাসা সুপার মাওঃ মতিউর রহমান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সরকার ভবন না দিলে তিনি কি নিজের টাকায় ভবন করবেন, আর কোনো শিক্ষার্থী যদি মাদরাসায় না পড়ে তাহলে তো জোরকরে পড়ানো যাবে না। এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন, এসব বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে দেখা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ