1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
পঞ্চগড়ে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে সার্বক্ষনিক স্বাভাবিক প্রসব সেবা জোরদার করণ বিষয়ক দিনব্যাপী কর্মশালা অনূষ্ঠিত খোঁজ মিললো নিখোঁজ প্রার্থী আসিফের তানোরে মটর মালিকের দৌরাত্ম্য কৃষকেরা অতিষ্ঠ গোদাগাড়ীতে শেখ কামাল আন্ত: স্কুল ও মাদ্রাসা অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতার শুভ উদ্বোধন বরগুনা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির সহযোগী করছে ছাত্রলীগ কর্মীরা পাইকগাছা উপজেলা খাদ্যগুদামে খাওয়ার অনুপযোগী চাউল স্যাম্পল রেখে ফেরত সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি প্রশংসায় ভাসছেন ইউএনও মমতাজ বগুড়া-৪ আসনে ৮৩৪ ভোটে হারলো হিরো আলম, জয়ী তানসেন ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের দুই
সিংহের মধ্যে রাসেল অবশেষে মারা গেছে
আজ সাপ্তাহিক তিতাসের সম্পাদক ও লেখক রেজাউল করিমের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী বড় ব্যবধানে জিতে সেই সাত্তার এমপি

ফের আলোচনায় চেয়ারম্যান সোহেল

  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৬২ ০৫ বার পঠিত

রাজশাহী প্রতিনিধি -ঃ- রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার মাটিকাটা ইউনিয়নের (ইউপি) আলোচিত চেয়ারম্যান সোহেল রানা ফের আলোচনায় উঠে এসেছে। তবে এবারের আলোচনার বিষয়টা একটু ভিন্ন ও চরম লজ্জার। চেয়ারম্যান সোহেল রানার বাবা মুজিবুর রহমানকে (৫৪) হেরোইন মাদকসহ ডিবি পুলিশ আটক করেছে। গত ২০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার রাতে ডিবি পুলিশ তার নিজ বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করেছেন।  তার আটকের খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে, ফের আলোচনায় উঠে এসেছে সেই আলোচিত চেয়ারম্যান সোহেল রানা। স্থানীয়রা বলছে, চেয়ারম্যান সোহেল রানার বাবা মুজিবুর রহমান হেরোইনসহ আটকে এটাই প্রমাণ করে, যে তাদের বাপ-বেটার নামে মাদক কানেকশানের যেসব অভিযোগ ছিল সেগুলো সত্যি। 

জানা গেছে, ইতিপুর্বে গোদাগাড়ীর মাটিকাটা ইউনিয়নের (ইউপি) চেয়ারম্যান সোহেল রানার বিরুদ্ধে কাজ না করেই অর্থ খরচ দেখানোর অভিযোগ উঠেছিল। এ ঘটনায় দুই ইউপি সদস্য জেলা প্রশাসকের (ডিসি) কাছে লিখিত অভিযোগ করেছিলেন। অভিযোগ করার পর কাজ করা হলেও তাতে ব্যবহার করা হয়েছে নিম্নমানের ইট। এ নিয়ে এক ইউপি সদস্য প্রতিবাদ করায় তাকে লাঞ্ছিত করা হয়েছিল।জেলা প্রশাসকের কাছে করা অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় মাটিকাটা ইউনিয়নে বেশকিছু প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য সরকার অর্থ বরাদ্দ দেয়। কিন্তু সেই অর্থের কোনো কাজ ইউনিয়নের কোনো এলাকায় হয়নি। চেয়ারম্যান সোহেল রানা, সচিব সাব্বির হোসেন ও তার কয়েকজন ঘনিষ্ঠ ইউপি সদস্যকে নিয়ে ভুয়া প্রকল্প দাখিল করে সমুদয় অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। এ ঘটনায় এলাকাবাসী পিরিজপুর বাজারে সোহেল চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেছিল। এসব নানাা কারণে স্থানীয় জনগণের গণধাওয়ার মুখে প্রায় দ্বিগম্বর হয়ে প্রাচীর টপকে পালিয়ে সমালোচনার জন্ম দিয়েছিল চেয়ারম্যান সোহেল রানা বলে আলোচনা রয়েছে।স্থানীয়রা জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সাংসদকে নিয়ে বিভিন্ন সময়ে আপত্তিকর মন্তব্য, মাদক কানেকশান, নারী কেলেঙ্কারি, অর্থ আত্মসাৎ ও ক্ষমতার অপব্যবহারসহ নানা কারণে সোহেল রানা আলোচনায় রয়েছে। এসব কারণে ইউপি সদস্যসহ এলাকার মানুষ চেয়ারম্যান সোহেল রানার অপসারণ দাবি করে তার বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে বলেও জনশ্রুতি রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ইউপি সদস্য বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান সোহেল রানার বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতি, মাদক ব্যবসা, নারী কেলেংকারী, জমি জবরদখলসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন,  সাধারণের কাছে এখন মুর্তিমান আতঙ্ক সোহেল রানা। তিনি বলেন, এলাকাবাসী তার নানামূখী অপকর্মে দিশেহারা হয়ে তার রাহুগ্রাস থেকে পরিত্রাণের আশায় তার বিরুদ্ধে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরে একাধিকবার লিখিত অভিযোগ করে ও কোনো প্রতিকার পায়নি ভুক্তভোগীরা। উল্টো বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি ও প্রাণনাশের হুমকি-ধামকি দিয়ে ভুক্তভোগীদের জিম্মি  করে রাখা হয়েছে বলেও আলোচনা রয়েছে। এসব নানা কারণে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার পর থেকেই আলোচনায় রয়েছে সোহেল রানা। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে মাটিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান সোহেল রানা সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করার পর থেকেই একটি প্রভাবশালী তার বিরুদ্ধে নানা রকমের ষড়যন্ত্র করে আসছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ