1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
গণমাধ্যম ও মানবাধিকার সংস্থা ন্যাশনাল প্রেস সোসাইটি (এনপিএস) খুলনা বিভাগ লাকসাম আজগরা ইউপি আ’স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী সমাবেশ ও পরিচিত সভা অনুষ্ঠিত গাজীপুরে দুদকের গণশুনানি অনুষ্ঠিত বিরামপুরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ বগুড়ায় দুদিনব্যাপী জামাই মেলা: বড় মাছ কেনার লড়াইয়ে জামাই-শ্বশুর অভিযাত্রিক সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংসদ-এর ২২৭২ তম সাপ্তাহিক সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত প্রশাসনের বন্ধ করা অবৈধ ইটভাটা ফের চালু তানোরে কৃষক দলের আহবায়ক কমিটি গঠন তানোরের দুই মেয়র গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপণে নাগেশ্বরীতে ১৮ টি সংখ্যালঘু পরিবার সরকারের সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত। বাস্তবায়ন হয়নি, মন্দিরের সংস্কার কাজ

তানোরে পাচারের সময় সার আটক

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৪৪ ০৫ বার পঠিত

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি -ঃ- রাজশাহীর তানোরের পাঁচন্দর ইউনিয়নের( ইউপি) কৃষ্ণপুর থেকে চৌবাড়িয়া সার পাচারের সময় স্থানীয় জনতা দুটি ভুটভুটিতে ১০০ বস্তা সার আটক করে কৃষি কর্মকর্তাকে অবগত করেন। পরে অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা কামরুল হাসান ও উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম এসব সার জব্দ করে প্রাণপুর আমপুকুরপাড়া নুরুল ইসলামের বাড়ির উঠানে জমা রাখেন।স্থানীয়রা জানান, প্রাণপুর গ্রামের রবিউল ইসলাম ও কৃষ্ণপুর গ্রামের মোজাম্মেল হক চোরাপথে বিভিন্ন এলাকা থেকে সার এনে মজুদ করে অতিরিক্ত দামে বিভিন্ন এলাকায় পাচার করছে। এখানো  কৃষ্ণপুর কলেজ সংলগ্ন তাদের গুদামে বিপুল পরিমাণ সার মজুদ রয়েছে। কৃষকেরা একাধিকবার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা রবিউল ইসলামকে অবগত করেন। কিন্ত্ত রহস্যজনক কারণে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান। গত রোববার ভুটভুটি করে বিপুল পরিমাণ সার চৌবাড়িয়া পাচার হয় বলেও কৃষকেরা অভিযোগ করেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ১৯ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে কৃষ্ণপুর থেকে ক্রয় রশিদ ব্যতিত দুটি ভুটভুটি করে চোরাপথে সার নিয়ে মান্দার চৌবাড়িয়া যাচ্ছিল। প্রাণপুর বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে স্থানীয়রা এসব ভুটভুটি থামিয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের খবর দেন। খবর পেয়ে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা এসব সারের বিষয়ে খোঁজখবর নিতে চাইলে বখাটে রবিউল ইসলাম লাঠি হাতে মারমূখি হয়ে তেড়ে আসে। তিনি বলেন, মাদারীপুর মাঠে তার আলুর প্রজেক্ট আছে সেখানে সার পাঠানো হচ্ছে এবং এসব সার মুন্ডুমালা পৌরসভার এদদাদ এর দোকান থেকে কিনেছেন। তবে তার কাছে
সার বিক্রির কথা এমদাদ অস্বীকার করেছেন। সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, সার বিপনন নীতিমালা অনুযায়ী এক এলাকার সার অন্য এলাকায় নেয়ার কোনো সুযোগ নাই। 
স্থানীয়রা জানান, রবিউল কোন ব্যবসায়ী না হয়েও উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা  রবিউলের যোগসাজশে সার পাচার করছে। তারা বলেন, রবিউল গভীর নলকুপের অপারেটর। তার দেয়া তালিকা অনুযায়ী নামমাত্র সার দিয়ে সব মজুদ করে বাড়তি দামে বিভিন্ন এলাকায় পাচার করছে। ভুটভুটি চালকেরা জানান, তাদেরকে রবিউল সার লোড দিয়ে চৌবাড়িয়া যেতে বলেছে এর বেশি কিছু তারা বলতে পারবেন না। এসময় মোজাম্মেল এসে বলেন, তিনি  রবিউলের গভীর নলকুপে প্রজেক্ট করছেন এসব সার মাদারিপুর প্রজেক্টে যাচ্ছিল। এসব সার চৌবাড়িয়া  যাচ্ছিল প্রশ্ন করা হলে উত্তরে তিনি বলেন, অনেক সারের প্রয়োজন, তাদেরকে আমি দিব, তারা আমাকে দিবেন। তিনি বলেন, বাড়ীতে এখানো প্রায়  ৫শ’  বস্তা সার আছে  বিএস রবিউল  ইসলাম তা জানেন। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাদারীপুর তাদের কোনো আলুর প্রজেক্ট নাই। তারা এসব কথা বলে সার পাচার করে।
এবিষয়ে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থলে সার জব্দ করা আছে। এমওপি ৬৩ বস্তা ডিএপি ৩৭ বস্তা মোট ১০০ বস্তা সার রয়েছে। এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল্লাহ আহম্মেদ বলেন, সংবাদ পেয়ে অতিরিক্ত কৃষি অফিসার ও বিএসকে পাঠানো হয়েছে। তাদের মুখে শুনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এবিষয়ে অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা  কামরুল  ইসলাম জানান, সারগুলো জব্দ করে ঘটনাস্থলে রাখা হয়েছে এবং কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও  পংকজ চন্দ্র দেবনাথ জানান, আমি বাহিরে আছি, সারগুলো পরিষদ চত্বরে আনা হবে এবং বিস্তারিত খোঁজখবর  নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এবিষয়ে রাজশাহী উপ-পরিচালক মাজদার হোসেন জানান, সার পাচারের কোন সুযোগ নেই। আমি নির্দেশ দিয়েছি আইনগত ব্যবস্থা নিতে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ