1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৫৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
পঞ্চগড়ে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে সার্বক্ষনিক স্বাভাবিক প্রসব সেবা জোরদার করণ বিষয়ক দিনব্যাপী কর্মশালা অনূষ্ঠিত খোঁজ মিললো নিখোঁজ প্রার্থী আসিফের তানোরে মটর মালিকের দৌরাত্ম্য কৃষকেরা অতিষ্ঠ গোদাগাড়ীতে শেখ কামাল আন্ত: স্কুল ও মাদ্রাসা অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতার শুভ উদ্বোধন বরগুনা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির সহযোগী করছে ছাত্রলীগ কর্মীরা পাইকগাছা উপজেলা খাদ্যগুদামে খাওয়ার অনুপযোগী চাউল স্যাম্পল রেখে ফেরত সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি প্রশংসায় ভাসছেন ইউএনও মমতাজ বগুড়া-৪ আসনে ৮৩৪ ভোটে হারলো হিরো আলম, জয়ী তানসেন ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের দুই
সিংহের মধ্যে রাসেল অবশেষে মারা গেছে
আজ সাপ্তাহিক তিতাসের সম্পাদক ও লেখক রেজাউল করিমের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী বড় ব্যবধানে জিতে সেই সাত্তার এমপি

এই শীতের ঘন কুয়াসায় কুমড়ো বড়ি বানানোর হিড়িক

  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ২০ ০৫ বার পঠিত

মিরু হাসান, বগুড়া সংবাদদাতা -ঃ- শীতের ঘন কুয়াসায় বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় সনাতনী পদ্ধতিতে কুমড়ো বড়ি বানানোর হিড়িক পড়েছে। নতুন পালং শাক, খেসারি শাক, পাশাপাশি আত্রাই নদীর পাতাসি মাছ সংগে নতুন আলু,বেগুন ও কুমড়ো বড়ি দিয়ে রসালো রান্না ভোজন প্রিয়সীদের উপযুক্ত খাবার। রান্নার সব-সব্জির সাথে কুমড়ো বড়ি যোগ হয় আলাদা ধরনের স্বাদ।

দুপচাঁচিয়া পৌরসভার ৭ নম্বর ওর্য়াডে লক্ষীতলা এলাকায় কুমড়ো বড়ির গন্ধে মুখরিত চারিদিক। হিন্দু ও মুসলিম সম্প্রদায় বসবাসের এই এলাকায় সবাই সম্পৃক্ত কুমড়ো বড়ি তৈরির সাথে। কুমড়ো বড়ি তৈরি করে ওই এলাকার শতাধিক পরিবার কোন রকমে সংসার চলে। প্রত্যেক পরিবারের ছেলে-মেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশুনার পাশপাশি মা বাবার সংগে কুমড়ো বড়ি তৈরির কাজে সহায়তা করে।

কুমড়ো বড়ির ব্যবসা করে শতাধিক পরিবারের একমাত্র আয়ের উৎস। বছরের অন্যান্য সময়েও কুমড়ো বড়ি তৈরি হয় তার চেয়েও শীতকালে চাহিদার চেয়ে অধিক পরিমান কুমড়ো বড়ি তৈরি ও বিক্রির দুটোই বৃদ্ধি পায়।

দুপচাঁচিয়া পৌর এলাকার ৭ নম্বর ওর্য়াড ল²ীতলা মহল্লার কুমড়ো বড়ির কারিগর শ্রী শ্যাম চন্দ্র মহন্তর বাড়ীতে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় বাজার থেকে মাষকালাই কিনে এনে বাড়ীতে স্ত্রী-পুরুষ সহ পরিবারের অনেক সদস্য ওই মাষকালইকে যাতাঁই পিশে গুড়ো করে সেই গুরো ডাল বিকেল-বেলায় পানিতে ভিজিয়ে ঠিক ভোর রাত্রিতে ছেঁকে নিয়ে মাষকালাই,কালোজিরা,কুমড়ো সহ অন্যান্য মসল্লা দিয়ে ভালোভাবে ফেটে নিয়ে বাঁশের চরাটে পাতলা আবরন যুক্ত কাপড় মেলিয়ে বিভিন্ন ডিজাইনে কুমড়ো বড়ি দিয়ে কমপে তিনদিন রৌদ্রে শুকিয়ে সেই শুকনো কুমড়ো বড়ি বাজারে নিয়ে বিক্রি করে। কুমড়ো বড়ি মানে ডালের বড়ি।

মাষকালাইয়ের ডাল, চালকুমড়ো, জিরা ,কালোএলাচ, কালোজিরা, ও বিভিন্ন উপকরন মসল্লা দিয়ে তৈরি হয় শীতকালের রান্নার উপকরন সুস্বাদু কুমড়ো বড়ি। কুমড়ো বড়ি দেশে ব্যাপক চাহিদা ও বড়ির গুনগত মান থাকায় প্রতি কেজি তিন শত টাকা থেকে ২ শত ৮০ টাকায় ক্রেতারা তাদের বাড়ী থেকে খুচরা ও পাইকারী দরে নিয়ে যাচ্ছে।ওই গ্রামের অরেকজন কুমড়ো বড়ি তৈরি কারিগর দুলাল সাহা জানান,আমরা সাড়া বছর কুমড়ো বড়ি তৈরি করি।

তবে উত্তম সংরনের ব্যাবস্থা না থাকায় কাঁচা মালের মতো কম দামেও বিক্রয় করতে হয়।কুমড়ো বড়ি তৈরির কারিগরেরা আরো বলেন,বাংলা সনের কার্ত্তিক মাস থেকে ফাল্গুন মাস পর্যন্ত এ কুমড়ো বড়ি চাহিদা বেশী থাকে। এ বছর উপকরনের দাম বেড়ে যাওয়ায় হাট-বাজারে কুমড়ো বড়ি বিক্রি করতে গিয়ে ক্রেতাদের সংগে দাম কশাকশি করতে হয়। গত-বছরে নভেম্বর মাসে কালাইয়ের দাম প্রতি কেজি ১৩০টাকা ছিলো।এ-বছরে ডালের দাম ১৩৫ টাকা থেকে ১৪০টাকা কেজিতে কিনতে হচ্ছে। এছাড়াও কুমড়ো বড়ি তৈরির অন্যান্য উপকরনের দামও বৃদ্ধি।

তিনি আরো বলেন, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী কুমড়ো বড়ি তৈরি করে ইটভাটার আগুনে একদিনেই শুকিয়ে বিক্রয় করে সাধারন মানুুষদের সংগে প্রতারনা করছে বলে জানাই। আমরা ভালো মানের কুমড়ো বড়ি তৈরি করে প্রতিদিন বিভিন্ন মহলায় বিক্রি করে ওই বিক্রির টাকা দিয়ে ছেলে মেয়েদের লেখা-পড়ার সহ সংসারের দুমুঠো খাবার চলে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ