1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৪২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
গণমাধ্যম ও মানবাধিকার সংস্থা ন্যাশনাল প্রেস সোসাইটি (এনপিএস) খুলনা বিভাগ লাকসাম আজগরা ইউপি আ’স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী সমাবেশ ও পরিচিত সভা অনুষ্ঠিত গাজীপুরে দুদকের গণশুনানি অনুষ্ঠিত বিরামপুরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ বগুড়ায় দুদিনব্যাপী জামাই মেলা: বড় মাছ কেনার লড়াইয়ে জামাই-শ্বশুর অভিযাত্রিক সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংসদ-এর ২২৭২ তম সাপ্তাহিক সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত প্রশাসনের বন্ধ করা অবৈধ ইটভাটা ফের চালু তানোরে কৃষক দলের আহবায়ক কমিটি গঠন তানোরের দুই মেয়র গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপণে নাগেশ্বরীতে ১৮ টি সংখ্যালঘু পরিবার সরকারের সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত। বাস্তবায়ন হয়নি, মন্দিরের সংস্কার কাজ

তানোরে পুকুর মালিকদের পুকুর ডাকাতি

  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৬৫ ০৫ বার পঠিত

আলিফ হোসেন, তানোর -ঃ- রাজশাহীর তানোরের বিভিন্ন এলাকায় বাণিজ্যিক মাছ চাষিদের প্রতারণায় সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে। জানা গেছে, উপজেলার  কামারগাঁ ইউনিয়নের (ইউপি) শস্য ভান্ডার। হাতিশাইল মাঠে শ্রেণী পরিবর্তন না করেই প্রায় তিনশ’ বিঘা তিন-ফসলী কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খনন করা হয়েছে।
এদিকে ইজারা নিয়ে এসব পুকুরে বাণিজ্যিক ভাবে মাছ চাষ করা হচ্ছে। এক বিঘা আয়তনের একটি পুকুরের বার্ষিক ইজারা মুল্য প্রায় লাখ টাকা। কিন্ত্ত কৃষি বা পতিত দেখিয়ে পুকুরের খাজনা দেয়া হচ্ছে। এতে সরকার প্রতিবছর লাখ লাখ টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেছে। 
সুত্র জানায় পৌর এলাকায় পুকুরের বার্ষিক কর ৫০ টাকা শতক, পৌরসভার বাইরে ৪০ টাকা শতক এবং কৃষি ও পতিত জমি ২ টাকা শতক। সেই হিসেবে ৩৩ শতক বা এক বিঘা আয়তনের একটি পুকুরের খাজনা বছরে এক হাজার ৩২০ টাকা।কিন্ত্ত কৃষি জমি দেখিয়ে এক বিঘা আয়তনের পুকুরে তারা খাজনা দিচ্ছে দু’টাকা শতক হিসেবে মাত্র ৬৪ টাকা। অর্থাৎ প্রতি শতকে ৩৮ টাকা করে সরকার রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে। তাদের এসব দুর্নীতে সহায়তা করছে ভুমি অফিসের একশ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারী। অথচ এক বিঘা আয়তনের পুকুরের ইজারা মুল্য প্রায় লাখ টাকা।
এদিকে উপজেলার কামারগাঁ ইউপির হাতিশাইল মাঠে গভীর নলকুপের আন্ডারগ্রাউন্ড ড্রেন ও  স্কীমভুক্ত তিন ফসলী জমি ধ্বংস  করে ফের অবৈধ পুকুর খনন করা হচ্ছে। এতে জমি সংকটের কারণে গভীর নলকুপ প্রায় অকেজো হতে চলেছে। এসব জমিতে চাষাবাদের সুবিধার জন্য বিএমডিএ কোটি টাকা খরচ করে গভীর নলকুপ স্থাপন,  আন্ডারগ্রাউন্ড ড্রেন  ও ক্রসড্যাম নির্মাণ করেছে। এমনকি সম্পুরুক সেচের জন্য প্রায় অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে মাঠের খাড়ি পুনঃখননের কাজ করা হয়েছে । এসব অবৈধ পুকুর খননে এলাকার প্রায় সহস্রাধিক কৃষি নির্ভর শ্রমজীবী কর্মহীন ও পরিবার নিয়ে তাদের জীবীকা নির্বাহ কঠিন হয়ে পড়বে। এছাড়াও গোচারণ ভুমি সংকটে গবাদিপশু লালন-পালন বন্ধ হয়ে পড়েছে। আবার অকাল জলাবদ্ধতার কারণে অনেক জমির ফসলহানির ঘটনা ঘটছে। অনেক 
শ্রমজীবীদের শ্রমের সন্ধানে এলাকা ছাড়তে হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, এক সময় শ্রমজীবী পরিবারের কর্মক্ষম ব্যক্তিরা এসব কৃষি জমিতে শ্রমদিয়ে ও অসময়ে গবাদিপশুর চারণভুমি হিসেবে ব্যবহার করতো। কিন্ত্ত কেশরহাটের জনৈক সাদিকুল ইসলাম ও আব্দুল করিমের পুকুর সন্ত্রাসে সেই সব এখন কেবলই অতীত। তিন ফসলী মাঠ এখন বাণিজ্যিক পুকুরে পরিণত হয়েছে।  এ ঘটনায় কৃষকদের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ