1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:৪৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
চকরিয়ার সবুজবাগে ড্রেনের পানি চলাচল পথ দখলে নিয়ে রাস্তা নির্মাণ, জনদুর্ভোগের আশঙ্কা খাদের কিনারে যাচ্ছে দেশের অর্থনীতি,এমপি ব্যারিস্টার শামীম পাটোয়ারী কুড়িগ্রামে সংবাদ টিভির কেক কাটার মাধ্যমে পঞ্চম বর্ষে পদার্পণ উদযাপিত হলো বাংলাদেশ প্রিন্টিং মাষ্টার এসোসিয়েশন এর প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন মসজিদে নামাজ পড়াতে গিয়ে ইমামের সাইকেল চুরি রাংগাঝিরি মোঃ ইউনুছ চৌধুরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রামে ব্যাটমিন্টন খেলাকে কেন্দ্র করে কিশোর গ্যাংয়ের ২ গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১ ছাতকে খেলাফত মজলিসের আলোচনা সভা ও দোওয়া মাহফিল রাজশাহী কারাগারে গোদাগাড়ীর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামির ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে নবাব ফয়জুন্নেছার ওয়াকফকৃত সম্পত্তি রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন

হাসপাতাল থেকে চার দিন বয়সী নবজাতক চুরি

  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১০ নভেম্বর, ২০২২
  • ২২ ০৫ বার পঠিত

মিরু হাসান বাপ্পী, বগুড়া সংবাদদাতা -ঃ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের গাইনি বিভাগ থেকে ৪ দিন বয়সী ছেলে নবজাতক চুরির ঘটনা ঘটেছে। বুধবার ( ৯ নভেম্বর) দুপুর ১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নবজাতকের মায়ের নাম ইতি (২৩)। তিনি বগুড়া সদর উপজেলার এরুলিয়া বানদিঘী এলাকার সৈকত হাসানের স্ত্রী।

বিষয়গুলো নিশ্চিত করেছেন শজিমেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ আব্দুল ওয়াদুদ। তিনি জানান, বিষয়টি জানার পর থেকেই বাচ্চাটির খোঁজ চলছে। সেই সঙ্গে মেডিকেলে থাকা সিসি ক্যামেরা চেক করে অপরাধী শনাক্তের ব্যবস্থা চলছে।

নবজাতকের নানি সালেহা বেগম জানান, এই মাসের ৫ নভেম্বর আমার মেয়ের প্রসব বেদনা শুরু হলে সন্ধ্যার দিকে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেই । পরের দিন রোববার (৬ নভেম্বর) সে ছেলে সন্তানের জন্ম দেয়। আজ ইতি ও আমার বড় মেয়ে রোজিনা বাচ্চকে নিয়ে গাইনি ওয়ার্ডে বসে ছিল। এসময় অজ্ঞাত এক মহিলা নবজাতক জন্ম হওয়ায় আমাদের সরকারিভাবে পাঁচ হাজার টাকা সরকারি সহায়তার দেওয়া আশ্বাস দেন। এই বলে আমার বড় মেয়ে রোজিনা ও নাতিকে নিয়ে তিনি নিচ তলার বহিঃবিভাগে নিয়ে আসেন। একপর্যায়ে ওই মহিলা আমার বড় মেয়েকে কিছু কাগজ ফটোকপি করার কথা বলে আমার নাতিকে চুরি করে নিয়ে যান।

তিনি আরও বলেন, আমরা নাতিকে এইভাবে সবার সামনে থেকে নিয়ে গেল। আমার মেয়ে মরেই যাবে। আমাদের বাচ্চাকে খুঁজে এনে দেন।

শজিমেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, আমরা পুলিশকে অবগত করেছি। আর্থিক সহায়তার কথা বলে এই ঘটনা ঘটেছে। সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) শরাফত ইসলাম জানান, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে আমাদের বিষয়টি অবগত করেছে। আমাদের দুইটি টিম ঘটনার রহস্য উদঘাটনে কাজ শুরু করেছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ