1. crimeletter24@gmail.com : crimelet_crimelet :
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৪৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
চকরিয়ায় সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদানে শ্রেষ্ঠ জয়িতা ২২ পুরস্কার পেলেন জিনিয়া মুছা আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উদযাপন উপলক্ষে চকরিয়ায় মানববন্ধন ও আলোচনা রংপুরে সাহিত্য সংস্কৃতি সামাজিক সংগঠন ‘ফিরেদেখা আয়োজনে রোকেয়ার ভাস্কর্যে পুষ্পমাল্য অর্পণ ইউএনও সহ পাইকগাছার ৫ নারী পেলন জয়িতা সম্মাননা বাগাতিপাড়ায় আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত সরকারী সুবিধা বঞ্চিত মহাছেনা’র জীবন হাতে হাত রেখে সরকারি কর্মকর্তা, শিশু থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ ‘না’ বললো দুর্নীতিকে ‘বিজিবি -বিএসএফ এর সীমান্ত বৈঠক ফলপ্রসু হয়েছে’  আদমদীঘিতে নৈশপ্রহরীর ২য় স্ত্রীর আত্মহত্যা গোদাগাড়ীতে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও ২০২২ উদযাপন উপলক্ষে মানববন্ধন ও আলোচনা সভা

জাতীয় পাওয়ার গ্রীড ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও ময়মনসিংহ জেলাসহ বিভিন্ন এলাকা ব্লাক আউট

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর, ২০২২
  • ৫৬ ০৫ বার পঠিত

মোঃ জহিরুল ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টার -ঃ জাতীয় গ্রীডে ত্রুটির কারণে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) ২০২২ তারিখ দুপুরের পর থেকে লোডশেডিং চলছে অনেক এলাকায়। কেউ কেউ এটাকে ব্লাক আউট হিসেবেও অভিহিত করছেন। বাংলাদেশ কয়কটি জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ। দুপুরের পর থেকেই বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ৷ বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহের দায়িত্বে থাকা দুই সংস্থা বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড এবং পাওয়ার গ্রীড কোম্পানি অফ বাংলাদেশের কর্তারা জানাচ্ছেন, ন্যাশনাল ট্রান্সমিশন গ্রীড ট্রিপ করার কারণেই কয়েকটি জেলায় এই বিদ্যুৎ বিহীন অবস্থায় রয়েছে ৷ জাতীয় পাওয়ার গ্রীডে বিপত্তি দেখা দিতেই একের পর এক বিদ্যুৎ গ্রীড উপকেন্দ্র গুলো বসে যেতে থাকে ৷ এতে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও ময়মনসিং জেলা সহ বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায় ৷ ব্লাক আউট বলতে বুঝায় কোন কারণে যদি ডিমান্ড অপ্রত্যাশিতভাবে বেড়ে যায় বা সাপ্লাই কমে যায় তখন পাওয়ার স্টেশন, বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন, সাবস্টেশনসহ পুরো গ্রীডের সেফটি সিস্টেম ট্রিপ করে। বাংলাদেশে বিদ্যুৎ প্রতি সেকেন্ডে ৫০ বার দিক পরিবর্তন করে,আমেরিকায় যা ৬০ হার্টজ। সে হিসেবে সাব ব্লাক আউট বলতে দেশের নির্দিষ্ট এলাকায় ব্লাক আউট এবং ব্লাক আউট বলতে পুরো গ্রিড ফেইল করাকে বোঝায়। যার অর্থ বিদ্যুতের ফ্রিকোয়েন্সী মিনিমাম ৪৮ এর নিচে নেমে গিয়েছে। ব্লাক আউট মুলত বিলিয়ন ডলার ইনফ্রাস্টাকচার কে বাচাতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ট্রিপ করা। অনেকটা বাসা বাড়ির সার্কিট ব্রেকারের মতই একটি ব্যবস্থা। ঘরে যখন হুট করে আমরা একটি বাতি জ্বালাই, ফ্যান চালাই তার জন্যেও দেশের কোন না কোন বিদ্যুত কেন্দ্রের টার্বাইন একটু হলেও জোরে ঘুরে। তবে রাতের মধ্যেই বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে বলে জানিয়েছে পাওয়ার গ্রীড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেড (পিজিসিবি)।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ